বাংলাদেশ সরকার দেশের রপ্তানি আয় বৃদ্ধির লক্ষ্যে রপ্তানি ভর্তুকি এবং নগদ সহায়তা প্রদান করে থাকে। এই সহায়তা নির্দিষ্ট খাত এবং পণ্যের জন্য প্রদান করা হয় যাতে বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্যগুলি বিশ্ববাজারে আরও প্রতিযোগিতামূলক হতে পারে। বাংলাদেশ ব্যাংক ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ তারিখে ২০২৩-২৪ অর্থবছরে রপ্তানির বিপরীতে রপ্তানি প্রণোদনা/নগদ সহায়তা প্রদান সংক্রান্ত নতুন সার্কুলার দেওয়া হয়েছে।

Cash Incentive Bangladesh Bank 2023-2024

বাংলাদেশ সরকার রপ্তানি আয় বাড়াতে বিভিন্ন ধরনের সহায়তা প্রদান করে থাকে। ২০২৩-২৪ অর্থবছরে ৪৩টি খাতে রপ্তানির বিপরীতে রপ্তানি প্রণোদনা/নগদ সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। তবে, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা (WTO)-এর নিয়ম অনুসারে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ হলে আর কোনো রপ্তানি প্রণোদনা/নগদ সহায়তা দেওয়া যায় না।

বাংলাদেশ ২০২৬ সালে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ লাভ করবে। তাই, উত্তরণ পরবর্তী সময়ে রপ্তানি খাতকে হঠাৎ করে রপ্তানি প্রণোদনা/নগদ সহায়তা থেকে বঞ্চিত করা হলে সেটি চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে পারে। তাই, সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে ২০২৪ সালের ১ জানুয়ারি থেকে বিভিন্ন খাতে নগদ সহায়তার হার ধীরে ধীরে হ্রাস করা হবে।

এই সিদ্ধান্ত অনুসারে, ২০২৪ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত জাহাজীকৃত পণ্যের ক্ষেত্রে বিদ্যমান ৪৩টি খাতে রপ্তানি প্রণোদনা/নগদ সহায়তা প্রযোজ্য হবে। তবে, রপ্তানি প্রণোদনা/নগদ সহায়তার আবেদনপত্র বহিঃনিরীক্ষক দ্বারা নিরীক্ষা করানো সংক্রান্ত নির্দেশনা বহাল থাকবে।

রপ্তানি প্রণোদনা/নগদ সহায়তা প্রদানের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য শর্তসহ অন্যান্য নির্দেশনাও অপরিবর্তিত থাকবে। সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষকে এই বিষয়ে অবহিত করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, এই সিদ্ধান্তটি শুধুমাত্র ২০২৪ সালের জন্য প্রযোজ্য হবে। পরবর্তীতে রপ্তানি প্রণোদনা/নগদ সহায়তার হার কতটুকু হ্রাস করা হবে তা নির্ধারণ করবে সরকার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার ডাউনলোড করুন

২০২৩-২৪ অর্থবছরে রপ্তানির বিপরীতে রপ্তানি প্রণোদনা/নগদ সহায়তা প্রদান সংক্রান্ত নতুন সার্কুলারটি ডাউনলোড করতে নিচের ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করুন। নতুন সার্কুলারে বিভিন্ন নগদ সহায়তার হার জানতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারটি ডাউনলোড করুন।

Show CommentsClose Comments

Leave a comment